৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪
আগ ২৫২০১৭
 
 ২৫/০৮/২০১৭  Posted by

তৈমুর খানের কবিতা


আস্ফালন

একা জানালার কাছে দাঁড়িয়ে আছি নিরক্ষর
সব অক্ষরগুলি মার্জিত নিবেদনে প্রজাপতি
ঘুমিয়ে পড়েছে কৌতূহলের নিবৃত্তি পেয়ে
একাকী স্বমেহনে চাঁদ পার করে রাত
দৈবহীন দুয়ারে কেবল আমার নীরব আস্ফালন

জলতল থেকে ওঠে কুমুদের ডাক
নিঃসঙ্গ শালুক শুধু খায় ঠাণ্ডা পাঁক

আজ কোনও বাক্যের ব্যত্যয় নেই, মৌন কৃপাণে
অস্তিত্ব খণ্ড হয় নিষিক্ত নির্বাসনে
যারা যারা ফুটিয়ে রাখে ফুলের সংরাগ
সেখানে প্রজন্ম ঢালুক সৃষ্টির পরাগ
বাঁকা চোখ, অনর্গল বিভ্রম দৃষ্টি হানে চতুর্দিক
আস্ফালন সেরে নিয়ে অশরীরী আমিও
মায়ার শরিক


অযথা বারান্দা ঘিরে আছি

আজ একটা নতুন চশমার কাচে
দূরকে নিকটে ডাকা হল
তার সন্নিধানে চলো উৎসর্গ করি সব আলো

নশ্বর চৌকিতে সব বদল হচ্ছে ঘর
লোকে লোকে বেড়ে উঠছে
অলৌকিক কন্যা ও বর

ডানাকাটা জ্যোৎস্নার দ্বীপে শুয়ে শুয়ে
রাত যায়
সন্ধানের বিহর্গিত আলোয় দৈবাৎ পীড়িত হয়

মেঘভাষা জানি নাকো কলরোল সার
নৈবেদ্যের অসীম প্রান্ত ছুঁয়ে বাঁশি বাজে
তার

যা জেনেছি দূরের সান্নিধ্য তটে চশমার গান
ভাঙা বিদ্যার ডাঙায় হৃদয়ের কারু সন্ধান

কিছু নেই, পৃথিবীর আরোগ্য খুঁজে
বুঝে যাই অসত্য প্রলাপ
দাউ দাউ আগুনের কোপে পুড়ে যায়
লাল যোনি
সমূহ বিলাপ


তারতম্য

সব মুশকিলগুলি এসেছে আমার ঘর
আজ ওদের বসতে দাও, আপ্যায়ন
ত্রুটিহীন চাই

আর
যে নামে নামুক জলে, নিজে খাই বিষফল
অযোগ্য যদিও আজ, যোগ্যতা কোথা পাই ?
নীল মাধুর্যের খাটে বশংবদ পাখি
ওর মাংসে রুচি আছে ? বলে দ্যাখো দেখি!
সূর্যহীন দিনকাল, প্রত্যয়হীন পাড়া
ব্যাকরণ না বুঝেই পড়ে যায় ওরা

তাদের গান্ধর্বজলে কী ছায়া ফোটে ?
ছায়ায় মাধুর্যময় বৈরাগ্য কাটে
অহংয়ের নবলিপি প্রাচুর্যের পাঠে
জলীয় কষ্টের মতো অন্তহীন ছোটে
আজ সব শিকল বাজুক, শিকলহীন ঘরে
উন্মীলিত হোক সাধু, মাসতুতো যেমন চোরে চোরে


সান্ধ্য আহ্নিক

দু একটি দাঁড়কাক নির্ভেদের কালে
চৈতন্যে মগ্নতা পায় গার্হস্থ্য বিকেলে
ঐশ্বর্যের সন্নিকট পারম্পর্য দাবি
ক্ষয়ের মুলুকে খুঁজি অক্ষয়ের চাবি
দারুণ নিহিত চোখ , পর্ব ভাঙা হাসি
নিমিত্তের নৌকায় পার হয়ে আসি
হে নতুন দিব্য জ্বর , অকথিত ভাষা
চর্যাপদ থেকে এই সান্ধ্যলোকে আসা
তারপর শিকড়ে শিকড়ে রস গল্পে কাঙাল
তীব্র লোনা ঢেউ থেকে সমুদ্র কল্লোল
ভিজে যায় শ্রদ্ধা ম্যাডাম, একসা হৃৎপিণ্ড
এ বর্ষায় করুণা নাবি, রুদ্ধ জড়পিণ্ড
কে বোঝে আলোক সাম্য, অলকের দীপ্তি
নির্ভেদ জাগাক দণ্ড , ভাঙুক সুসুপ্তি…


দুঃখ মোচন

ভালোবাসার সঙ্গে কখনও দেখা হয়নি
বয়সের তীরভূমি ভেঙে পড়েছে প্রবল প্রবাহে
তাড়িত আকাশ থেকে বিদ্যুৎ ঝলকানি

কখনও প্রসন্ন এসে দরজায় দাঁড়ায়নি
মেঘলা দুপুরে বিষণ্ণ বর্ষা ফুঁফিয়ে কেঁদে গেছে
কাদামাখা রাস্তায় কোনও কুশল আসেনি
আজ ফুটো হয়ে যাওয়া হৃদয় সেলাই করে
শারদীয়া কুড়োতে এসেছি পৃথিবীতে

শিশির ধোয়া একটি জবার কাছে
বলতে এসেছি আমার আমি কেমন আছে

দুর্গারা সব পুজো পেয়ে ফিরে যাক বাড়ি
আমিই শুধু নির্বাসনে দুঃখ মোচন করি


উপস্থিতি

তোমার ডাকে আর উচ্ছ্বাস নেই
তোমার দৃষ্টিতে আর আকুতি নেই
তুমি সমস্ত মেঘ পাঠিয়ে দিয়েছ কোথায়
আমার জন্য ধুধু আকাশ, বারুদ মেশানো পাহাড়

কোথায় দাঁড়াব ? নিদাঘের পোড়া রুটি
নিরন্ন বাতাসে বুলবুলি নেমেছে রাস্তায়
এক চিলতে ছায়া নেই, বিক্রি হয়ে গেছে
সব স্নেহের গাছতলা

মরুভূমি চেটে চেটে তবুও এসেছি এখানে
উটের সারি গুনে গুনে রাস্তা পেরিয়েছি
কত দীর্ঘ পথ, মৃত্যুর করাতে চিরে গেছে
যুদ্ধ করে বারবার বিশ্রাম চেয়েছি

এখন তোমার সম্মুখে এই উপস্থিতি
বলো, কী আদেশ বাকি আছে আর
এতদিন যা পালন করিনি?


শহর যাপন

ক্রমশ উচ্ছিষ্ট হয়ে উঠছি
আর বিবেকের জল শুকিয়ে যাচ্ছে
আমাকে দ্যাখে না আর এ শহর
এ শহরের ময়ূর ময়ূরী

নীল অবগাহনের স্বপ্ন কবে মরে গেছে
এখন দুর্বল সড়কে পার হই সেতু
আকাঙ্ক্ষার সূর্যহীন আলোয়
তুমুল প্রলাপ মাখি জ্বরের তাড়নে

বিকেলের রক্তাক্ত ওড়না খুলে
দেখি আকাশ যুবতীর লাশ
অশ্রুর জলে ভেসে যায় —
সেই জলেই ভরে নিই তৃষ্ণার শিশি

রাতের আস্ফালনে পোড়ে ইতিহাস
মির্জাফরের দেশে কোন্ সকাল প্রত্যাশিত
ভেবে ভেবে চলে যাই — বাঁকা চোখ…
আরতির পাশে শুধু নারী অঙ্গ, যৌন চেতনা

এ শহর জেগে ওঠে, ঘণ্টা বাজায়…

_________________________________

তৈমুর খান

তৈমুর খান

তৈমুর খান, জন্ম ২৮ জানুয়ারি ১৯৬৭, বীরভূম জেলার রামপুরহাট সংলগ্ন পানিসাইল গ্রামে।
পিতা ও মাতা : জিকির খান ও নওরাতুন। শিক্ষা : বাংলা ভাষা ও সাহিত্য নিয়ে মাস্টার ডিগ্রি এবং প্রেমেন্দ্র মিত্রের কবিতা নিয়ে পি এইচ ডি প্রাপ্তি। পেশা : উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহশিক্ষক। মূলত নব্বই দশকের কবি ও গদ্যকার। বিখ্যাত বইগুলো হল : কোথায় পা রাখি, বৃষ্টিতরু, খা শূন্য আমাকে খা, আয়নার ভেতর তু যন্ত্রণা, জ্বরের তাঁবুর নীচে বসন্তের ডাকঘর, একটা সাপ আর কুয়াশার সংলাপ, প্রত্নচরিত, নির্বাচিত কবিতা ইত্যাদি।
পুরস্কার : কবিরুল ইসলাম স্মৃতি পুরস্কার, দৌড় সাহিত্য সম্মান এবং সুখচাঁদ সরকার স্মৃতি পুরস্কার । ঠিকানা : রামরামপুর, শান্তিপাড়া, রামপুরহাট, বীরভূম জেলা, পিন কোড ৭৩১২২৪, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।ফোন নম্বর ৯৩৩২৯৯১২৫০

Loadingপ্রিয় তালিকায় রাখুন!
E