৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪
আগ ০৭২০১৭
 
 ০৭/০৮/২০১৭  Posted by

শরীরের ক্লাসরুম
– শারদুল সজল

 

ওই তো আমার হৃদপি-
জখমের দগদগে ঘাঁ নিয়ে
শুয়ে আছে

বিশ্বস্ত ঘুম এলেই
কেবল দেখতে পাও
কম্পনের তলে ফেরারি
চুমুর পারফিউম

যে কিনা
ঘামসূত্রের ওমীয় চাঁদ!

২.
পেসাব করতে সংসদে যায়
তবু থামে না পেসাবের বেগ!

রোদচশমা পড়ে
ঘরে ঘরে
মুখের ভেতর
হাই তোলে

বহুগামীসুখ!

অথচ বায়রনের জিপার খুলে
আকাশের দিকেও তাক করে আছে
একনলা ট্যাঙ্ক!

৩.
কে বলবে- ট্যাঙ্কের জমানো ফেনায়
ভ্রুণের শরাবে কিলবিল করেনি
আরব দম্পতির মুখ!

ওদের প্রত্যেক সুড়ঙ্গকে কাজে লাগাতে দেখে
বাংলার যুবকটিও
প্রেমিকার বিজল থেকে
তুলে খায়
কামাসক্ত অ্যান্টিবায়োটিক!

৪.
বেশ!
হিজিবিজি
গতরের গন্তব্য খুলে
তুলে ধরছে সিরিয়াল চুমু

ঠোঁটে কাঁপছে
পাহাড়
পাহাড়ে কাঁপছে
নদী
নদীতে কাঁপছে
বিদ্যুৎ
বিদ্যুতে কাঁপছে
তলাতল

শটসার্কিটে
ঘর্ষণের ওপর থিসিস করছে
চামড়ার সিলেবাস!

৫.
জানি
প্রেমে বিচ্ছেদ হলে
সঙ্গম ব্যর্থ হয়

সঙ্গম থাকে
সংগোপনে
শিরায় শিরায়
অর্তকিত ঘাঁয়ে

শরীর-
মেইনদরজা খুললেও
ঝিলিক আদ্রতায়
নড়ে না টনক!

৬.
পড়! হে আদম সন্তান
শরীর
সঙ্গম শেষে মনের ক্বাবা ঘরে
সিজদা করো- প্রেমে, ঘামে ও গন্তব্যে
বলো- এইখানে আল্লাহ

এইখানে
নারী ও নরক থেকে জন্ম নিয়েছে
স্বর্গের বেহালা
বাজাও
সম্পূর্ণ বিলীনে

৭.
কেউ একজন গুছিয়ে রেখেছে
বুক আর জরায়ুর সঞ্চয়!

প্রেমের কুসুমে
হাফ ভয়েলের চোখ
তোমাকে ছেনে
ছিঁড়ে
গঙ্গার তুফানে
খুলবে
ভেতর দরজার
গিঁট

৮.
তুমি ফুটবে
অশান্ত ভেজা সামরিকে
গতি ও ঘণত্বে
তোমার কোষে কোষে
জন্ম নেবে
ঈশ্বরীয় ঋতু

নিয়ম না মেনেই
বুকের দুপাশে
জেগে উঠবে
ম্যাগনেটিক কদম!

৯.
তুমি
ঢাকনা খুলে
রন্ধনশিল্পে
স্পর্শ খুলবে

আর কেউ একজন
গেরিলা দীক্ষায়
তোমার জাদুঘরে তাক করবে
বিজলিচমক!

১০.
এরপর
উচ্চারিত
হবে
ওস্তাদ
ওস্তাদ!

ডানে না
বামে না
সামনে

ভেতরে
চলুন


শারদুল সজল

শারদুল সজল

শারদুল সজল। জন্ম: ৭ ডিসেম্বর , বাশাইল টাঙ্গাইল। পড়াশুনা : মার্স্টাস। পেশা: শিক্ষকতা।

প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ : অন্ধকারে যতদূর দেখা যায় (২০১৪); মাতাল মৃত্যুর ইশারা ২০১৬।

Loadingপ্রিয় তালিকায় রাখুন!
E