৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৪
জানু ০৫২০১৭
 
 ০৫/০১/২০১৭  Posted by

আফজল আলির একগুচ্ছ কবিতা টানাগদ্যে


শব্দ সূচক

আন্দাজে ঢিল ছুঁড়ে দেখলাম মেরি মহব্বত অন্ধেরে মে ছুপ গায়া। অতঃপর গোপন পরমায়ু থেকে আমি ক্ষরিত হচ্ছি যেন তুমি ফসলের দোপাট্টা এবং এবং এবং ভরসা রাখার বৃত্তে অনাবাসী গুলাব। সেই তো ছড়িয়ে দেবে কপূর্রের গন্ধ তাই ভালো আছি, ভালো আছি, সরমে লাগিয়েছো ঘায়েল।
ওপারে পৌঁছে দেব নিশ্চুপ আতর, আরেকটি আরেকটি নিরুপায়ের উপর বসেছে কাক। ড্রেসিংটেবিল আলনা খাট এরা সুখ দেয় তবু মাঝে মধ্যে গুণাগার আমি খুব সীমিত অক্ষরে নিজেকে নামাই। সরল সমীকরণে ইহার সাধারণ গুননীয়ক নাই


দক্ষিণে

কাল দক্ষিণ দিকটা একটু ঘুরে এলাম। তিনমাত্রার মনকেমন লাফাতে লাফাতে এগিয়ে আসছে, জবরদখল থেকে বাঁচাতে চাইছি সবাই। তোমরা ভুলে যেও না আমাদের নাগরিক সভ্যতা সুখ কিনছে টাকা পয়সা দিয়ে। গতকাল পূর্ণিমা প্রতিস্থাপিত হয়েছিল এই ভেবে যে চাঁদকে আমরা সদর্থক ভেবেছি। চলো সামনে লোকালয়ে, ক্ষতের জানালায় সূর্য ওঠা দেখি। পৌরুষ ঢেলেছি অনেক,  দুঃখ জারিত হয়েছে,  আজ একটু নির্বাক হব দক্ষিণে


কেবলই পিছলে দেয়

জানতে চাইছিলাম আর তুমি অজানা অজানা বলে চিৎকার করছিলে। ভাঙন ও বৈভব – অক্ষরেখার দুদিকে। এই তো সোজা পায়ে হাঁটছি। মনকেমন কলার খোসা কেবলই পিছলে দেয়। অসম্পূর্ণতার উপরে সূর্য উঠলে হৃদয়ভাসি রোদ তোমাকে ঘুমাতে দিচ্ছে না, আর ওই দিকে যে মুদির দোকান,  – প্রযোজন কুচি কুচি করে কাটছে সময়। এখন এসো না। সব তাগিদ সব উপমা গোল হয়ে ভাসছে – – সমস্ত কথার উপর বল্লম গেঁথে দাও, পারছি না আর একটা অসাধারণ পৌঁছে দিতে


অখ্যাত সওদাগর

আর বেশি ভালো থাকা সম্ভব নয় বুঝলাম যখন বোতলগুলো দাঁড়িয়েছিল ও গাছ আমাদের উৎকৃষ্ট করছে। শোনো, জীবন আমি সংযোজন করলাম। তোমরা ভয় পেও না। নাকোচের বাইরে এত যে পেয়েছি, অবিশ্বাস পিছু হঠছে। দ্যাখো, শ্রাবণ ও ফাল্গুন যেমন ছিল আছে শুধু এই তৈরি হওয়া ঝোঁক প্রতিফলিত হয়ে কোথায় যেন – – –

লুকিয়ে থাকো দুর্ভোগের ভিতর, যাপনচিত্রে তুমিও ছিলে এক অখ্যাত সওদাগর, শুধু  ভুল আমাদের তছনছ করেছে ও জীবন তেমনই যতটা মুখে আলো পড়ে ছিটকে যাচ্ছে আবার

আফজল আলি

আফজল আলি

Loadingপ্রিয় তালিকায় রাখুন!
E